সর্বশেষ

অক্সফোর্ড ছাত্র সংগঠনের সভাপতি বাংলাদেশি আনিশা ফারুক

অক্সফোর্ড ছাত্র সংগঠনের সভাপতি বাংলাদেশি আনিশা ফারুক

বিখ্যাত অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র সংগঠন ‘অক্সফোর্ড স্টুডেন্ট ইউনিয়ন’র সভাপতি নির্বাচিত হয়েছেন বাংলাদেশের মেয়ে আনিশা ফারুক।

অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের ইতিহাসে আনিশা ফারুক হলেন প্রথম বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত শিক্ষার্থী যিনি এই মর্যাদাপূর্ণ পদে নির্বাচিত হলেন।

গত বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় অক্সফোর্ডের ওয়েস্টন লাইব্রেরিতে নির্বাচনের ফলাফল ঘোষণা করা হয়।

তিন দফায় অনুষ্ঠিত ছাত্রদের প্রতিনিধিত্বশীল এই সংগঠনের চুড়ান্ত পর্বে ১৫২৯ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন আনিশা ফারুক। মোট ৪৭৯২ জন ভোটার এ নির্বাচনে ভোট দেন।

আনিশা এর আগে অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের লেবার পার্টির কো-চেয়ার হিসাবেও দায়িত্ব পালন করেছেন।

আনিশার বাবা অবসরপ্রাপ্ত সেনা কর্মকর্তা মেজর ফারুক আহামেদ মেয়ের এই সাফল্যে উচ্ছ্বসিত।

তিনি বলেন, আনিশা শুধু আমার মুখ উজ্জ্বল করেনি, আমার দেশের মুখও উজ্জ্বল করেছে। নিজেকে খুব ভাগ্যবান মনে করছি।

মেজর ফারুক আরো জানান,আনিশা খুবই প্রচার বিমুখ। তিনি ‘ও’ এবং ‘এ’ লেভেল পরীক্ষায় রেকর্ড পরিমান এ স্টার পাওয়ার পরও তাকে কোনো পত্রিকা বা টেলিভিশনে সাক্ষাৎকার দিতে রাজি করানো যায়নি।

মেজর ফারুক তার মেয়ের জন্য সকলের কাছে দোয়া চেয়েছেন।

মেজর ফারুক আহামেদ ও রেহানা চৌধুরী দম্পতির দুই সন্তানের মধ্যে আনিশা ফারুক বড়। ছেলে জবরান ফারুক এ লেভেলে পড়ছেন।

ফারুক আহামেদের গ্রামের বাড়ি বাংলাদেশের ভোলা জেলার চর ফ্যাশন উপজেলায়।

অক্সফোর্ড স্টুডেন্ট ইউনিয়ন শুধুমাত্র বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষা নীতি নির্ধারন ও দাবি দাওয়া নিয়েই কাজ করে না, পাশাপাশি জাতীয় শিক্ষা কারিকুলামের উচ্চ শিক্ষায় সরকারের নীতি নির্ধারণের ক্ষেত্রেও দেনদরবার করে থাকে।

আনিশা ফারুক শুধু বাংলাদেশ নয়, এশিয়ান বংশোদ্ভূত দ্বিতীয় শিক্ষার্থী যিনি এই গৌরব অর্জন করলেন। এর আগে ১৯৯৩ সালে প্রথম জাতিগত সংখ্যালঘু হিসাবে আকাশ মহারাজা সভাপতি নির্বাচিত হয়েছিলেন এবং ১৯৯৪ সালে ছাত্র ইউনিয়নের ক্ষমতা খর্ব করার বিলের বিরুদ্ধে প্রচারভিযান চালিয়ে সফল হয়েছিলেন। তিনি তখন ব্রিটেনের তৎকালীন শিক্ষামন্ত্রী জন প্যাটেনের পদত্যাগে ভূমিকা রেখেছিলেন।

সূত্র: দেশে বিদেশে

(Visited 1 times, 1 visits today)

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*