সর্বশেষ

পাঁচ হাজার শিশুকে ‘অসমাপ্ত আত্মজীবনী’ দিলো যুবলীগ

পাঁচ হাজার শিশুকে ‘অসমাপ্ত আত্মজীবনী’ দিলো যুবলীগ

পাঁচ হাজার শিশুকে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ‘অসমাপ্ত আত্মজীবনী’ দিলো ঢাকা মহানগর দক্ষিণ যুবলীগ। শুক্রবার বিকালে রাজধানীর কাকরাইলে যুবলীগের গবেষণা সেল ‘যুব জাগরণ কেন্দ্রে’ এই কর্মসূচির উদ্বোধন করেন যুবলীগের চেয়ারম্যান মোহাম্মদ ওমর ফারুক চৌধুরী।

শিশুদের মাঝে বঙ্গবন্ধুর আদর্শ ছড়িয়ে দিতে ‘বঙ্গবন্ধুকে জানো, শিশু কর্নারে বই পড়’ স্লোগান নিয়ে শুক্রবার থেকে যাত্রা শুরু হলো শিশু কর্নারের। প্রতি শুক্রবার বিকাল ৩টা থেকে সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত শিশুরা লাইব্রেরিতে এসে বই পড়তে পারবে। আর এখানে এলেই বিনামুল্যে বঙ্গবন্ধুর অসমাপ্ত আত্মজীবনী বইটি পাবে। এছাড়াও শিশুদের জন্য বিভিন্ন রকমের লজেন্স, বিস্কুট, আইসক্রিমের ব্যবস্থা রাখা হবে। শুক্রবার ৫ হাজার শিশুর হাতে বই তুলে দিয়ে আনুষ্ঠানিকভাবে যাত্রা শুরু হলো এটির।

অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন যুবলীগের ঢাকা মহানগর দক্ষিণের সভাপতি ইসমাইল চৌধুরী সম্রাট। বিকাল ৪টায় বই বিতরণ কর্মসূচির কথা থাকলেও দুইটা থেকে ঢাকার বিভিন্ন এলাকা থেকে অভিভাবকদের সাথে শিক্ষার্থীরা এসে উপস্থিত হন। কাকরাইলে ঢাকা মহানগর দক্ষিণ যুবলীগের নেতাকর্মীরা তাদেরকে স্বাগত জানান এবং শিশুদের মাঝে কেক, আইসক্রিম, চকলেট বিতরণ করেন। অভিভাবকদের জন্য চা-কফি ও বিকালের নাস্তার ব্যবস্থা ছিলো। বিকালে শিক্ষার্থীরা বই পেয়ে আনন্দে আত্মহারা হয়ে পড়ে।

উদ্বোধনী বক্তব্যে যুবলীগ চেয়ারম্যান মোহাম্মদ ওমর ফারুক চৌধুরী বলেন, যুবলীগ যুবসমাজের মেধা-মনন, বিকাশে এবং যুবজাগরণের ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করছে। রাজনীতিতে যে গবেষণা চিন্তা চেতনা করা যায় যুবলীগই তার পথ পদর্শক। আমরা তারুণ্যের বিকাশের জন্য কাজ করছি। তরুণরা রাজনীতি করুক বা না করুক মাদকাসক্ত বা সন্ত্রাসবাদে না জড়িয়ে একজন সুনাগরিক হয়ে ওঠে সেজন্য গবেষণা কাজের বাইরেও সাংগঠনিকভাবে নানামুখী কার্যক্রম পরিচালনা করছি। যুবজারগণ গবেষণা কেন্দ্রের মাধ্যমে জাতির পিতার আদর্শ ছড়িয়ে দিতে আমরা কাজ করছি।

বিশেষ অতিথির বক্তৃতায় যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক হারুনুর রশিদ বলেন, আজকে শিশুদের হাতে বই তুলে দিয়ে আমরা প্রমাণ করতে চাই, যুবলীগ শুধু যুবকদের নিয়েই ভাবে না, আগামী প্রজন্ম নিয়েও ভাবে।

সভাপতির বক্তব্যে ইসমাইল চৌধুরী সম্রাট বলেন, ঘরে ঘরে গড়ে উঠুক দেশপ্রেমিক নতুন প্রজন্ম। তাই শৈশব থেকেই দিতে হবে দেশপ্রেমের পাঠ। শিশুদের শোনাতেই হবে বিজয়ের কথা, আমাদের গৌরব গাঁথা, ওরা যার গর্বিত অংশীদার, ওরা যার ধারক, বাহক ও উত্তরাধিকার। সে কারণেই প্রতি শুক্রবার কাকরাইলের যুবজাগরণ কেন্দ্রে শিশু কর্নার খোলা হয়েছে।

তিনি বলেন, শিশুদের মাঝে বঙ্গবন্ধুর আদর্শ ছড়িয়ে দিতে আমরা নিজ নিজ পরিবার, আত্মীয় স্বজন ও প্রতিবেশী থেকে শুরু করে সর্বস্তরের শিশুদের নিয়ে কাজ করবো।

এসময় আরো উপস্থিত ছিলেন, কেন্দ্রীয় যুবলীগের কাজী আনিসুর রহমান, মিজানুল ইসলাম মিজু, মহানগর যুবলীগের মাইনুদ্দিন রানা, সোহরাব হোসেন স্বপন, সানোয়ার হোসেন মনা, হারুনুর রশিদ, আনোয়ার ইকবাল সান্টু, নাজমুল হোসেন টুটুল, এনামুল হক আরমান, মোরসালিন আহমেদ, খোরশেদ আলম মাসুদ, কাউন্সিলর মমিনুল হক সাঈদ, জাফর আহমেদ রানা, ফারুক হোসেন, মিজানুর রহমান বকুল, গাজী সরোয়ার হোসেন বাবু, মাকসুদুর রহমান, আরমান হক বাবু, ইমদাদুল হক ইমদাদ প্রমুখ।

(Visited 1 times, 1 visits today)

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*